4G LTE Modem Router Review সম্পূর্ন বাংলায়

 Internet জগতে ঘুরে বেড়াতে আমাদের সবারই প্রয়োজন হয় মডেম অথবা রাউটার অথবা ফোন। কিন্তু মডেম রাউটার কিনতে গিয়েই বাধে বাধা বিপত্তি। বাজারে হরেক রকমের ইন্টারন্টে মডেম পাওয়া যায়। কিছু থাকে শুধু মডেম, কিছু আবার মডেম+রাউটার।  অনেকে আবার সস্তার এই মডেম রাউটার গুলো কিনে থাকেন। তাদের জন্যই আজকের ভিডিও টি। সবাইকে সাজেষ্ট করবো D Link DWR 910 মডেম+রাউটার কি কেনার জন্য। 4G LTE নামে যেই মডেম টি পাওয়া যায় তা অনেক নিন্মমানে। যাই হোক যারা এই মডেমটিও কিনতে চান তাদের জন্যও থাকছে এই মডেমটির রিভিউ। কিনলে ঠকবেন নাকি জিনবেন সেটা এই ভিডিও তেই জানতে পারবেন। 

যাই হোক বর্তমানে ছবিতে যে মেডমটি দেখতে পাচ্ছে সেই মডেমটি ৪ জি এল টিই মডেম নামেই পরিচিত। এসকল মডেমমের কোনো মা বাপ নাই। কম্পানির কোন ঠিক ঠিকানা নাই। চায়নাতে বিভিন্ন কম্পিানি তাদের নিজস্ব নামে রিব্রান্ডিং করে এসকল মডেমের গায়ে তাদের নিজ কম্পানির নাম এবং কাষ্টমাইজ সফটওয়ার লাগিয়ে তা বিক্রি করে দেয়। কিন্তু মূল স্ট্রাকচার এবং তথ্য একই থাকে। 

মানুষ এগুলো কেনে কারন এগুলো অতিনিন্মমানের সার্কিট বোর্ড দ্বারা তৈরি হয়। যা আপনার ডিভাইস যেমন ল্যাপটপ থেকে অতিরিক্ত পরিমানে চার্জ শোষন করে। এবং অতিরিক্ত পরিমানে গরম হয়। এই ডিভাইস টি নিয়ে যদি বেশি ঘাটাঘাটি করা হয় তাহলে দেখা যায় যে এটা চায়নার একটি নন ব্রান্ড কম্পানির ডিভাইস IMEI দিয়ে বিল্ড করা। অর্থাত অনুমান করা যায় যে এটার IMEI এবং সেলুলার ইনফরমেশন ক্লোন করা। যখন আমি এটাকে ইন্টারনেটে সার্চ করছিলাম কথন তারা ভুয়া আইএমইআই হিসেবে চিহ্নিত করে। ফলে আমি বিস্তারিত নিয়ে আরো ঘাটাঘাটি করি। 

তখন একটি লক্ষণীয় বিষয় আমার চোখে পড়ে, এই মডেমটিতে যদি বাংলাদেশি বাংলালিংক কম্পানির সিম লাগানো হয় তাহলে বেশ কিছুক্ষন পর পর ইন্টরনেট ড্রপ হচ্ছে। এর কারন টি আমি খুজে বের করার চেষ্টা করছিলাম। তখন দেখলাম BTRC এর ইটিলিজেন্স সফটওয়া সম্পর্কে। যা বিভিন্ন অবৈধ VOIP SIM DEVICE এর IMEI ব্লক করে রাখে । এবং তাদেরকে নির্দিষ্ট সময় অবদি বন্ধ করে রাখে যেন কেই সিম টি দিয়ে বা উক্ত IMEI টি দিয়ে অবৈধ কল করতে না পারে। যেহেতু আমাদের মডেমটি নন ব্রান্ড চায় না কম্পানির সেহেতু VOIP প্রস্তুতকারন কম্পানির IMEI এবং আমাদের বৈধ মডেমের IMEI একই ক্যাটাগরির হয়ে থাকে। যেটার রিষ্ক এর কারনে মাঝে মধ্যে বাংলালিংক সহ অন্যানো অপারেটর রা এসকল মডেমের IMEI তে ড্রপ সিস্টেম করে থাকে। কারন এগুলো নির্দিস্ট কোনো কম্পানি যেমন D Link, TP Link এর মত সনাম ধন্য কোনো কম্পানির প্রডাক্ট না।

এসকল মেডমে যে সকল সার্কিট ব্যাবহার করা হয় তাতে অনেক গুরুত্বপূর্ন কম্পোনেন্ট বাদ দিয়ে তৈরি করা হয়। ফলে এগুণেলা অধি পরিমানে গরম হয় । ঠিকমত স্টাবল কানেকশন দিতে পারে না। অধিক দূরত্বে সিগনাল পায় না। কানেকশন ড্রপ হয়। অনেকসময় সিম কার্ড গরম হয়ে গলে যায়। এগুলো স্লাপড্রাগন প্রসেসর দেয়া থাকলেও তা অতি নিন্মমানের। সঠিক পরিমানে বিদ্যুত প্রবাহ এর মান ঠিক না থাকায় এটা অতিরিক্ত গরম হয়। যা অতিরিক্ত পরিমানে পাওায়ার কনজিউম করে থাকে। যাই হোক এবার আপনাদের রিভিউতে সব ই বলবো। তাহলে চলুন ভিডিও টি দেখে নেওয়া যাক।

ত চলুন এখন ভিডিও টি দেখা যাক: https://www.youtube.com/watch?v=Xuk5KcUg6Xs




Post a Comment

0 Comments